‘পুলিশ একজন মানুষ’ এবং ‘পুলিশ – দ্য রিয়েল হিরো’ (নাটক রিভিউ)

পুলিশ নাটক

উৎসব মানেই ছোটপর্দায় নাটকের ছড়াছড়ি। তবে এতো নাটকের ভীড়েও আলোচনার তুঙ্গে থাকে কিছু নাটক। এবারের বৈশাখে পুলিশ -কে নিয়ে নির্মিত এমন দুটি নাটক হল ‘পুলিশ একজন মানুষ’ এবং ‘পুলিশ – দ্য রিয়েল হিরো’। যেগুলো বানিয়েছেন এই সময়ের অন্যতম দুই জনপ্রিয় নাট্যনির্মাতা মাবরুর রশীদ বান্নাহ এবং কাজল আরেফিন অমি। সোশ্যাল মিডিয়াতে নাটক দুটির ট্রেইলার প্রকাশের পর থেকেই দর্শকদের মাঝে তৈরি হয় বাড়তি উত্তেজনা। আর এর পিছনে মূল কারণ হিসেবে ছিল অপূর্ব ও নিশো! হওয়াটাই কি স্বাভাবিক নয়? ছোটপর্দার অভিনেতাদের মাঝে এই সময়ের সেরা এই দুই তারকা হলেন তাঁরা। আবার নাটকের বিষয়বস্তুও ছিল এক! নাটক দুটি তৈরিও হয়েছে জনপ্রিয় দুই পরিচালকের হাতে। সবমিলিয়ে দর্শকদের উত্তেজনা ছিল টানটান। অবশেষে গত ১২ ও ১৩ এপ্রিল ইউটিউবে প্রকাশিত হয় বৈশাখ উপলক্ষে নির্মিত এই নাটক দুটি।

চলুন দেখে নিই, কেমন ছিল পুলিশ চরিত্রে অপূর্ব ও নিশো অভিনীত ‘পুলিশ একজন মানুষ’ এবং ‘পুলিশ – দ্য রিয়েল হিরো’ নাটক।

পুলিশ একজন মানুষ (Police Ekjon Manush)

পুলিশ একজন মানুষ

মাবরুর রশীদ বান্নাহ’র পরিচালনায় ‘পুলিশ একজন মানুষ’ নাটকটিতে অভিনয় করেছেন জিয়াউল ফারুক অপূর্ব। এছাড়াও আরও অভিনয় করেছেন তাসনিয়া ফারিন, শোয়েব মুনির, রাহুল, রকি খান। Club 11 Entertainment ইউটিউব চ্যানেলে গত ১২ এপ্রিল প্রকাশ পায় নাটকটি। একটি নয়, দুটি নয়, সাতটি গল্পে সাতটি পুলিশ চরিত্রের মধ্য দিয়ে গল্পটির মূল মেসেজ তুলে ধরেছেন পরিচালক। সাতটি পুলিশী চরিত্রেই অভিনয় করেছেন অপূর্ব। তবে সাতটির গল্পের পাঁচটি লিখেছেন পরিচালক বান্নাহ নিজেই। বাকি একটি গল্প নেয়া হয়েছে অনলাইন থেকে। আরেকটি লেখা হয়েছে অভিনেতা অপূর্বর মূল ভাবনা থেকে। পুলিশ -কে নিয়ে মানুষের বাজে ও বিকৃত মনোভাবকে নাড়িয়ে দিয়ে পরিচালক বুঝাতে চেয়েছেন, দিনশেষে পুলিশও একজন মানুষ। পুলিশ হতে পারেন সৎ, হতে পারেন অসৎ। হতে পারেন ভুড়িওয়ালা কিংবা চিকন। কিন্ত সমসাময়িক সময়ে পুলিশকে নিয়ে সাধারন মানুষদের দৃষ্টিকোণটা এতোটাই বদলে গেছে যে, পুলিশকে মানুষ হিসেবেও মানতে নারাজ আমরা অনেকেই। আর এই বিকৃত চিন্তাধারার দাঁত ভাঙ্গা জবাব পাওয়া গেছে সাতটি গল্পের কম্বো প্যাকেজ ‘পুলিশ একজন মানুষ’ নাটকটিতে। তবে সাতটি গল্পের রয়েছে আলাদা সাতটি নাম। যেমনঃ পুলিশের বউ, মশা, ভুড়ি, পকেটমার, সৎ-অসৎ, বোন, পাঙ্গাশ মাছ। সাতটি গল্প ভাবনাই পুলিশ চরিত্র কেন্দ্রিক। পুলিশ কারো বাবা, কারো ভাই, কারো সন্তান। পুলিশী পোষাকের বাহিরের মানুষটাকে নিয়ে আমাদের ভাবা হয়ে উঠেনা। আর সেটা বিভিন্ন ছোট ছোট গল্পের আঙ্গিকে দেখতে এখনই ঢু মারুন Club 11 Entertainment ইউটিউব চ্যানেলে। সবমিলিয়ে, ভাল ছিল ‘পুলিশ একজন মানুষ’ নাটকটি।

পুলিশ – দ্য রিয়েল হিরো (Police – The Real Hero)

পুলিশ দ্য রিয়েল হিরো নাটক

ছোটপর্দায় এ সময়ের তুমুল জনপ্রিয় অভিনেতা আফরান নিশো। অসংখ্য নাটকে হরেক রকম চরিত্রে এই পর্যন্ত নিজেকে মেলে ধরেছেন নিশো। এবার পর্দায় নিজেকে দুর্দান্ত এক পুলিশ অফিসার হিসেবে তুলে ধরলেন তিনি। বৈশাখ স্পেশাল ‘পুলিশ – দ্য রিয়েল হিরো’ নাটকে অভিনয় করেছেন নিশো। নাটকটি পরিচালনা করেছেন তরুণ প্রজন্মের জনপ্রিয় নাট্যনির্মাতা কাজল আরেফিন অমি। ১৩ এপ্রিল সন্ধ্যা সাতটায় ইউটিউবে রিলিজের পর থেকেই ইউটিউব কাপাচ্ছে ‘পুলিশ – দ্য রিয়েল হিরো’। তবে সোশ্যাল মিডিয়া কাঁপানোর শুরুটা এখানেই নয়। এর আগে ফেসবুকে নাটকটির ১ মিনিট ৩৬ সেকেন্ডের ট্রেইলার প্রকাশের পর থেকেই রীতিমত তুমুল আলোচনায় ছিল নিশোর ‘পুলিশ – দ্য রিয়েল হিরো’। ট্রেইলার প্রকাশের পর অধিকাংশ দর্শক নাটকটির অ্যাকশনধর্মী দৃশ্যগুলোকে তামিল মুভির সাথে তুলনা করেছেন। সত্যিই, এক মুহূর্তের জন্যেও চোখ সরানোর মতো ছিল না নাটকটির অ্যাকশন সিন গুলোতে। এছাড়া, মুভির আদলে একটি মিউজিক ভিডিও ছিল নাটকটিতে। তবে, নাটকটি পুরো দেখার পর বুঝতে পেলাম, অ্যাকশন সিন আর মিউজিক ভিডিওটিই দর্শককে টেনেছে নাটকটিতে। আলোচিত এই ‘পুলিশ – দ্য রিয়েল হিরো’ নাটকটিতে নিশোর পাশাপাশি অভিনয় করেছে তানজিন তিশা, তানজিম হাসান অনিক, রকি খান সহ আরও অনেকে। যেখানে নিশো একজন স্মার্ট, হ্যান্ডসাম পুলিশ অফিসার। নিজের ভাললাগা থেকেই এই পুলিশ প্রফেশন বেছে নিয়েছেন তিনি। চলতি সময়ের অন্য রোমান্টিক নাটকগুলোর গল্পের আদলেই পরিচালক তৈরি করেছেন নাটকটি। যেখানে তিশার বয়ফ্রেন্ড হল পুলিশ অফিসার নিশো। রোমান্টিক গল্পের পাশাপাশি নিশোর পুলিশ চরিত্রটির মাধ্যমে তুলে ধরা হয়েছে পুলিশকে নিয়ে আমাদের নেতিবাচক মনোভাব। ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ারসহ সকল সম্মানিত পেশার মতোই একটি হল পুলিশ। কিন্ত পারিপার্শ্বিক অবস্থা বিবেচনায়, পুলিশ এখন আমাদের সমাজে বেশিরভাগ মানুষের কাছে একটি খারাপ চরিত্র। আর সেটারই জবাব নাটকটির সুন্দর গল্পের মাধ্যমে দেখিয়েছেন পরিচালক অমি। অসৎ-অসৎ চরিত্র পৃথিবীর সকল পেশার মানুষদের মাঝেই আছে। পুলিশ পেশাও ব্যতিক্রম নয়। কিন্ত গুটিকয়েক অসৎ পুলিশের জন্য আমরা জনগনের বন্ধু অসংখ্য সৎ পুলিশকে অফিসারকে নূন্যতম সম্মানটুকুও দেইনা। এরকমই বিষয়বস্তুকে ঘিরে তৈরি হয়েছে অসাধারন একটি নাটক ‘পুলিশ – দ্য রিয়েল হিরো’। তামিল মুভির স্বাদ আর অসাধারন বাংলা নাটকের কম্বিনেশনে তৈরি ‘পুলিশ – দ্য রিয়েল হিরো’ দেখতে এখনই ভিজিট করুন Cinemawala ইউটিউব চ্যানেল। উল্লেখ্য যে, নাটকটি পরিবেশিত হয়েছে ringID -এর সৌজন্যে।

আমার চোখে দুই পুলিশ…

একজন নাটকপাগল দর্শক হিসেবে নাটক দুটির দুই তারকা এবং দু’জন পরিচালকই আমার ভীষণ প্রিয়। অসম্ভব আগ্রহ উদ্দীপনা নিয়ে অপেক্ষায় থাকার পর অবশেষে দেখেছি নাটক দুটি। নাটক দুটির মূল মেসেজ এক হলেও গল্প, চরিত্র মিলিয়ে দুটোই আলাদা। অনেক দর্শকই নাটক দুটোর বিষয়বস্তু এক হওয়ায় একটিকে আরেকটির প্রতিযোগী বানিয়ে ফেলতে পারেন। তবে সেই সাহস আমার নেই। বরং, আমি নাটক দুটিকে দেখছি ভিন্ন দৃষ্টিকোণে। সমসাময়িক সময় বিবেচনায়, আমরা খুব ভালভাবে অবগত যে, পুলিশ চরিত্রটিকে আমরা এতোটাই নেতিবাচক বানিয়ে ফেলেছি যে, তা মাত্রাতিরিক্ত খারাপ পর্যায়ে পৌঁছে গেছে। আর ঠিক সেইসময়ই দুই জনপ্রিয় পরিচালকের উদ্যোগে একই বিষয়বস্তু নিয়ে কাজ করার কারণে অনেক অনেক ধন্যবাদ প্রাপ্য তাঁদের। কারণ নিঃসন্দেহে সময়োপযোগী ছিল এই নাটক দুটি। তাই, এ কথা বলতেই হয়, নিজ নিজ জায়গায় পুলিশের জীবন কেন্দ্রিক নাটক দুটিই সেরার সেরা। দুটো নাটকই চেস্টা করেছে জনগনের বন্ধু পুলিশকে তাঁদের পেশাগত এবং ব্যক্তিগত জীবনটিকে তুলে ধরার। যা আমাদেরকে পুলিশকে নিয়ে নেতিবাচক মন্তব্য করার আগে দ্বিতীয়বার ভাবাবে। আমি মনে করি, এটিই সফলতা দুই পরিচালকের, দুই অভিনেতার এবং দুই নাটকের। সময়ের প্রয়োজনে পুলিশকে নিয়ে এরকম অসাধারন নাটক তৈরির কারণে সত্যিই শুধু পুলিশ পরিবার নয়, আমাদের সকলের কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করা উচিৎ। দর্শক হিসেবে আপনাদের কেমন লাগলো, কমেন্টে জানাতে ভুলবেন না কিন্ত…

আরও কিছু পোস্ট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *